FacebookMySpaceTwitterDiggDeliciousStumbleuponGoogle BookmarksRedditNewsvineTechnoratiLinkedinMixxRSS Feed

কাজী আইটি ক্যারিয়ার বুট ক্যাম্প অনুষ্ঠিত

কাজী আইটি ক্যারিয়ার বুট ক্যাম্প অনুষ্ঠিত৬ হাজার চাকরি প্রার্থীর মিলন মেলার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে কাজী আইটি ক্যারিয়ার বুটক্যাম্প।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বঙ্গবন্ধু আন্তজার্তিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে অনুষ্ঠিত কাজী আইটি ক্যারিয়ার বুটক্যাম্পের আয়োজক ছিল দেশের শীর্ষস্থানীয় আইটি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান কাজী আইটি সেন্টার লিমিটেড। আয়োজনের সহযোগিতায় ছিল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গর্ভন্যান্স (এলআইসিটি) প্রকল্প।

৬ হাজার চাকরি প্রার্থীকে বিভিন্ন বিষয়ের ওপর প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে সরাসরি ২০ তরুণকে কাজী আইটিতে চাকরির সুযোগ দেওয়া হয়। সারাদেশ থেকে প্রায় ১৫ হাজার প্রতিযোগী এই আয়োজনে অংশগ্রহণের জন্য রেজিষ্ট্রেশন করে। কয়েক ধাপে বাছাই প্রক্রিয়া শেষে ৬ হাজার প্রতিযোগীকে কাজী আইটি ক্যারিয়ার বুটক্যাম্পে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

আয়োজনের সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ক্যারিয়ার বুট ক্যাম্প থেকে সরাসরি নিয়োগ প্রাপ্ত ২০ জনের হাতে কাজী আইটির পক্ষ থেকে নিয়োগপত্র তুলে দেন। এ সময় তিনি বলেন, কাজী আইটি ও আইসিটি বিভাগের লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গর্ভন্যান্স (এলআইসিটি) প্রকল্পের সমন্বয়ে আয়োজিত এই ক্যারিয়ার বুট ক্যাম্পে আমি তরুণদের মাঝে নতুন উদ্দীপনা অনুভব করছি। এর আগে বিভিন্ন সময় আমরা আলাদাভাবে চাকরির মেলা এবং প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের আয়োজন দেখেছি। কিন্তু এখানে একইসঙ্গে চাকরি দেয়া ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কাজী আইটিতে কাজ করার সুযোগ পাক বা না পাক, এ প্রশিক্ষণ তরুণদের অনেক দূর যেতে সাহায্য করবে।

তিনি বলেন, আগামী ২০২১ সালের মধ্যে আইটি-আইটিইএস খাতে রপ্তানি আয় ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করা এবং ২০ লাখ তথ্যপ্রযুক্তি পেশাজীবি তৈরির যে লক্ষ্যমাত্রা আমরা ঠিক করেছি, আমি আশা করি এই ক্যারিয়ার বুট ক্যাম্প সেই লক্ষ্য পূরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এলআইসিটি প্রকল্পের মাধ্যমে আমরা সারাদেশে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করছি। প্রশিক্ষণ প্রাপ্তরা এই ধরনের ক্যারিয়ার বুট ক্যাম্পের মাধ্যমে উপকৃত হবে বলে আমরা মনে করছি। 

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ২০১৮ সালের মধ্যে আমরা ‘মিশন ওয়ান বিলিয়ন ডলার’ লক্ষ্য পূরণে কাজ করছি। তরুণরাই এ লক্ষ্য পূরণ করবে।

দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাক্য এর সভাপতি ওয়াহিদ শরীফ, বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক (বিডিওএসএন) এর সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান প্রমুখ।