সর্বশেষ সংবাদ ::
FacebookMySpaceTwitterDiggDeliciousStumbleuponGoogle BookmarksRedditNewsvineTechnoratiLinkedinMixxRSS Feed

সকল ধর্মের মর্মবাণীই মানব কল্যাণের কথা বলে

 

সকল ধর্মের মর্মবাণীই মানব কল্যাণের কথা বলেইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেছেন, সকল ধর্মের মর্মবাণীই মানব কল্যাণের কথা বলে। বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার মধ্যদিয়ে গড়ে উঠেছে। পারস্পারিক এক বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে এক সাথে সবাই কাজ করে চলেছে। তিনি বলেন, একটি ধর্মের শ্রেষ্ঠত্ব সেই ধর্মের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকেনা। তিনি বলেন, দীর্ঘ ৩০০ বছর ধরে ভারতবর্ষসহ বিভিন্ন দেশে সরস্বতী দেবী নানা মার্তৃকতায় বিকশিত হয়। জ্ঞানের, বিদ্যার সৃষ্টশীলতা হিসেবে সরস্বতী দেবী স্থান করে নিয়েছে। ভাইস চ্যান্সেলর বলেন শুধু দেবীকে পূজা করলেই হবে না, তাঁদের কৃতকর্ম ধারণ ও লালন করতে হবে। তাহলে প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে উঠা সম্ভব।

আজ ২৪ জানুয়ারি সকালে বীর শ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী এসব কথা বলেন।
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ধনঞ্জয় কুমারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় বিশেষ অতিথি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, এক সময় এ দেশে সনাতন ধর্মবলম্বীরা নির্বিগ্নে ধর্মীয় উৎসব পালন করতে পারতো না। বর্তমান সরকার পরিবেশ তৈরী করেছে বলেই আজ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সকল ধর্মের মানুষ তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলো নির্বিগ্নে পালন করতে পারছে। তিনি বলেন, সরস্বতী দেবীর আহবানে আমরা আলোকিত হতে চাই, হতে চাই জ্ঞানী।
অপর বিশেষ অতিথি ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, রাষ্ট্রের মুল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে অসাম্প্রদায়িকতা। তিনি বলেন, আসুন আমরা সবাই সুন্দর হই। আর সুন্দর হতে পারলে দেশকেও আমরা সুন্দর করতে পারবো।

আলোচনাসভায় ধর্মালোচক হিসেবে আলোচনা করেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের প্রফেসর ড. অরবিন্দ সাহা এবং রাজবাড়ী কালুখালী মদনমোহন মন্দিরের আচার্য্য গোপাল গোস্বামী। আলোচনা শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।